এবার ইতালিফেরত প্রবাসীর মৃত্যু, ২ হাসপাতাল লকডাউন

করোনা ভাইরাসের (কভিড-১৯) উপসর্গ নিয়ে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ইতালি ফেরত এক ব্যক্তি (৬০) মারা গেছেন। তার চিকিৎসা নেওয়া দুটি প্রাইভেট হাসপাতাল লকডাউন করে দিয়েছে প্রশাসন।

রোববার দিবাগত রাতে শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে তিনি মারা যান। তার বাড়ি শহরের জগন্নাথপুর এলাকায়।

ওই প্রবাসী ২৮ ফেব্রুয়ারি ইতালি থেকে দেশে ফিরেছিলেন। এর মধ্যে তিনি হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা বা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির কারও সঙ্গে যোগাযোগ করেননি।

গতকাল রাত সাড়ে ১০টার দিকে প্রবাসীকে তার স্বজনরা করোনার উপসর্গ নিয়ে শহরের লক্ষ্মীপুর এলাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে সরকারি আইসোলেশন সেন্টারে যেতে বলেন। কিন্তু তার স্বজনরা তাকে সেখানে না নিয়ে শহরের কমলপুর এলাকার আরেকটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে রাত ১১টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে হাসপাতালের ব্যবস্থাপক বলেন, রাত সাড়ে ১০টার দিকে প্রচণ্ড জ্বর, গলা ব্যথা ইত্যাদি উপসর্গ নিয়ে ওই ব্যক্তি হাসপাতালে আসেন। আমরা তখন তাকে সরকারি আইসোলেশন সেন্টারে যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে ছেড়ে দিই।

খবর পেয়ে রাতেই উপজেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহমেদের নেতৃত্বে একটি মেডিকেল টিম ওই প্রবাসীর বাড়ি যান এবং আশপাশের ১০ বাড়ি পর্যন্ত পুলিশি নজরদারিতে নেন।

আজ সোমবার সকালে ঢাকা থেকে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট-আইইডিসিআরের প্রতিনিধিনিরা ভৈরবে এসে মৃতের নমুনা সংগ্রহ করেছেন।

এসব তথ্য জানিয়েছেন উপজেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহমেদ।
বাংলাদেশে সরকারি হিসাব অনুযায়ী এখন পর্যন্ত করোনায় দুজনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন ২৭ জন। তাদের মধ্যে পাঁচজন সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন।