পাবনায় ভাগিয়ে নিয়ে এসে উধাও, সেই প্রেমিকার সঙ্গেই ছাত্রলীগ নেতার বিয়ে


পাবনা বার্তা ২৪ ডটকমসহ গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় অবশেষে প্রেমিকের বাড়িতেই বিয়ের পিঁড়িতে বসলো প্রেমিকা। গত বুধবার রাতে পাবনার সুজানগ চরভবানীপুর গ্রামে প্রেমিক আলী রেজার বাড়িতে প্রেমিকা মীম খাতুনের বিয়ে সম্পন্ন হয়।

জানা যায়, বেশ কিছুদিন ধরে উক্ত চরভবানীপুর গ্রামের আনছের আলী মন্ডলের ছেলে উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলী রেজার সাথে পাবনা সদর উপজেলার সুখচর গ্রামের আজিবর মোল্লার মেয়ে মীম খাতুনের মনদেওয়া-নেওয়া চলছিল। এরই জেরধরে গত শুক্রবার দুপুরে প্রেমিক আলী রেজা প্রেমিকা মীম খাতুনকে বিয়ে করার প্রতিশ্র“তি দিয়ে বাড়ি থেকে ভাগায়ে নিয়ে নিয়ে আসে।

মীমের পরিবার সূত্রে জানা যায়, আলী রেজা মীমকে ভাগায়ে নিয়ে যাওয়ার পর তার ফুফু বাড়ি পাবনা সদরের ফারাদপুর গ্রামে উঠে এবং মীমকে বিয়ে করবে বলে তার পরিবারকে জানায়। কিন্তু তার পরিবার বিষয়টি জানার পর বিশেষ করে আলী রেজার চাচা সুজানগর মহিলা কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শাহজাহান আলী ওই বিয়েতে বাধসাধে। শুধু তাই না সে কৌশলে মীমকে ফারাদপুর থেকে তাদের বাড়িতে নিয়ে আসে এবং আলী রেজাকে আত্মগোপনে থাকতে বাধ্য করে। সেই সঙ্গে অর্থের বিনিময়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চালায়।

তবে মীম বিয়ের দাবিতে প্রেমিক আলী রেজা বাড়িতে অবস্থান নিয়ে অনশন শুরু করে। পাশাপাশি বিষয়টি পাবনা বার্তা ২৪ ডটকমসহ গণমাধ্যমে  সংবাদ প্রকাশিত হওয়ায় প্রেমিক আলী রেজার পরিবারের পক্ষে ঘটনা ধামাচাপা দেওয়া সম্ভব হয় না।

শেষ পর্যন্ত বিয়ের দাবিতে ৪/৫দিন প্রেমিক আলী রেজার বাড়িতে অবস্থান করার পর গত বুধবার রাতে ওই বাড়িতেই প্রেমিকা মীমের সাথে প্রেমিক আলী রেজার বিয়ে সম্পন্ন হয়। মীমের এক নিকট আত্মীয় বলেন আলী রেজার চাচা উক্ত শাহজাহান আলী মীমের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা না করে বিবেকবর্জিতভাবে ওই বিয়ে ভেঙ্গে দেওয়ার চেষ্টা চালায়।

 কিন্তু শেষ পর্যন্ত স্থানীয় নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপ আর পত্রিকায় এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশিত হওয়ায় তার চেষ্টা ব্যর্থ হয়।